অনলাইন ব্যবসা কিঃ ১১ টি অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া (অনলাইন বিসনেস)

অনলাইন ব্যবসা কিঃ এবং "অনলাইনে ব্যবসা" কিভাবে শুরু করা যায় এবেপারে অনেকেই জানতে চান। আজ, ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোনের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে অনলাইনে ব্যবসার সুযোগ অনেক বেড়েগেছে। 

গ্রাহকেরা (consumer), ঘরে বসেই বিভিন্য ই-কমার্স (E-commerce) ওয়েবসাইটের মাধ্যমে, কেবল ইন্টারনেট (internet) এবং নিজের মোবাইল বা ল্যাপটপ ব্যবহার করেই যেকোনো জিনিস (product) অনলাইন অর্ডার (online order) দিয়ে কিনে নিচ্ছেন।
১১ টি অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া (অনলাইন বিসনেস)

পণ্য কিনে নেয়ার থেকে টাকা পেমেন্ট করা সবটাই ঘরে বসে হয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে, অনলাইন বিসনেস (online business) এর ভবিষৎ এবং এর চাহিদা দিনের পর দিন বেড়ে যাওয়াতে, আপনার এবং আমার জন্য ব্যবসা করার এক নতুন সুযোগ (opportunity) চোখের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে।


কিন্তু, সহজে অনলাইনে সফল হওয়ার জন্য, আপনার কিছু অনন্য (unique) লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে কাজ করতে হবে। কোন, বিশেষ সামগ্রী বা পণ্য লোকেরা সহজে অনলাইন কিনে নিতে চান, সে বেপারে আপনার অল্প মাথা লাগাতেই হবে।

আজ, amazon, flipkart, snapdeal এদের মতোই কত ছোট বড়ো “অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট” (online shopping website) বা মোবাইল এপস রয়েছে, যারা কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে দাঁড়িয়েছে, কেবল অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য (product) বা সার্ভিস (service) বিক্রি কোরে। 

ভাবলে কিন্তু অসম্ভব মনে হয়, কিন্তু করলে সম্ভব বোলে অনেকেই প্রমাণিত করেছেন।এদের মতোই, কিছু ভালো এবং আলাদা অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে যদি আপনি কাজ শুরু করেন, তাহলে হয়তো অনেক সহজেই সফলতার রাস্তায় যেতে পারবেন।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করার একটি বিশেষ লাভ রয়েছে। আপনি, যেকোনো পণ্য (product) বা সামগ্রী নিয়ে যেকোনো বিশেষ জায়গা বা লোকেশন (location) টার্গেট কোরে নিজের অনলাইন ব্যবসা (business) চালিয়ে যেতে পারবেন।

আপনি খুব কম টাকায় এই online business এর কাজ প্রথম অবস্থায় শুরু করতে পারবেন। তাছাড়া, আপনি কি ধরণের সামগ্রী নিয়ে কাজ করবেন সেটার ওপরেও আপনার প্রয়োজন হওয়া টাকার পরিমান নির্ভর করবে।তাহলে চলুন, বেশি সময় না নিয়ে আমরা আজকের এই আর্টিকেলে কি কি জানবো, সে বেপারে জেনে নেই।

    অনলাইনে ব্যবসা মানে কি ?

    অনলাইন ব্যবসা কিঃOnline business, এমন এক প্রকারের ব্যবসা যেটা শুরু থেকে শেষ অব্দি অনলাইনের (online) মাধ্যমে বা ইন্টারনেটের (internet) মাধ্যমে করা হয়। মানে, এই ব্যবসা ইন্টারনেটে সক্রিয় থাকা লোকেদের বা গ্রাহক দেড় টার্গেট কোরে পণ্য (product), সার্ভিস (service) বা যেকোনো 


    জিনিস অনলাইনেই বিক্রি কোরে, লাভ আয়ের উদ্দেশ্যে করা হয়।অনেক সময়, অনলাইন বিসনেস বলতে, বেচা কেনা (buy & sell) ছাড়াও অনেক কার্যকেই বলা যেতে পারে। যেমন, নিজের ব্লগ, ওয়েবসাইটে বা ভিডিওতে গুগল এডসেন্স দ্বারা বিজ্ঞাপন (advertisement) দেখিয়ে অনলাইন টাকা আয় করা এক ধরণের profitable online business।

    অনলাইন ব্যবসা কিঃOnline business, এমন এক প্রকারের ব্যবসা যেটা শুরু থেকে শেষ অব্দি অনলাইনের (online) মাধ্যমে বা ইন্টারনেটের (internet) মাধ্যমে করা হয়।

    Affiliate marketing দ্বারা online commission income করাও এক ধরণের অনলাইন বিসনেস। এবং, আরো অনেক ধরণের অনলাইন কার্য রয়েছে, যেগুলি ডাইরেক্ট (direct) বেচা কেনার সাথে জড়িত না থাকলেও, সেগুলিকে একধরণের ব্যবসা বলা যায়।

    একজন ব্যবসার মালিক যে তার বেবসার কিছু অংশ বা পুরো ব্যবসাটাই যদি ইন্টারনেটের ব্যবহার করে করছেন, তাহলে সে একটা online ব্যবসা চালাচ্ছেন। একটা অনলাইন business চালানো মানে, online দোকান, blogging করা, YouTube, অনলাইন বেচা কেনা করা বা যেকোনো অনলাইন সার্ভিস প্রদান করাকে বোঝায়।

    আলাদা আলাদা industries বা categories এ আপনারা অনেক ধরণের আলাদা আলাদা বিসনেস দেখতে পারবেন যেগুলি অনলাইন ইন্টারনেটের দ্বারা চলছে।আপনি এবং জেকেও একটি ব্যবসা অনলাইনে শুরু করতে পারবেন, যদি আপনার কাছে unique product, service বা আইডিয়া (idea) রয়েছে জেবেপারে লোকেরা অনলাইন খুঁজছেন।


    আরো ভালো করে বুঝতে ওপরের ভিডিওটি লক্ষ করুন-

    অনলাইন এবং অফলাইনে ব্যবসার ৫ পার্থক্য-


    যেভাবে, offline ব্যবসা করার অনেক নিয়ম এবং মাধ্যম আমাদের কাছে রয়েছে, সেভাবেই online যেকোনো business করার অনেক নিয়ম বা মাধ্যম রয়েছে।কিন্তু, যখন আমরা online এবং offline এ করা business এর পার্থক্য কোরে দেখি, তখন অনলাইনে করা business এর লাভ অনেক গুনে বেশি পাই।

    যেভাবে, offline ব্যবসা করার অনেক নিয়ম এবং মাধ্যম আমাদের কাছে রয়েছে, সেভাবেই online যেকোনো business করার অনেক নিয়ম বা মাধ্যম রয়েছে।কিন্তু, যখন আমরা online এবং offline এ করা business এর পার্থক্য কোরে দেখি, তখন অনলাইনে করা business এর লাভ অনেক গুনে বেশি পাই।

    অনলাইন এবং অফলাইনে ব্যবসার পার্থক্য-


    ১. আপনার কোনো ধরণের physical office বা দোকানের (shop) প্রয়োজন নেই। আপনি কেবল একটি laptop বা computer যেখানে internet connection রয়েছে, দিয়েই নিজের ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। ঘরে বসে বসে ব্যবসা করা সম্ভব।

    কিন্তু,
    Offline business এর ক্ষেত্রে কিন্তু আপনার একটি physical store বা office অবশই নিতে হবে। নাহলে, গ্রাহকেরা আপনার পণ্যের প্রতি আকর্ষিত হবেনা।

    ২. অনলাইনে করা অনেক রকমের ব্যবসা রয়েছে, যেগুলি আপনারা কম থেকে কম টাকা দিয়ে আরম্ভ করতে পারবেন। এবং, কিছু ক্ষেত্রে তো আপনি কোনো টাকা ছাড়াই বিসনেস স্টার্ট করতে পারবেন।

    কিন্তু,
    Offline business আজকাল কম investment বা বিনা টাকায় শুরু করা প্রায় অসম্ভব।

    ৩. অনলাইন করা ব্যবসাতে আপনার online দোকানে, website বা ব্লগে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসেই অনেক সহজে যেকোনো সময়ে গ্রাহক বা ভিসিটর্স আসার সুবিধা রয়েছে।

    পুরো, ২৪ ঘন্টা আপনার business লোকেদের জন্য খোলা থাকে। এতে ব্যবসা এবং লাভ অনেক গুনে বেড়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।
    কিন্তু,

    Offline ব্যবসাতে, লোকেরা প্রত্যেকবার আপনার physical store এ গিয়ে গিয়ে জিনিস (product) কিনতে হবে। তাছাড়া, আপনার দোকান ২৪ ঘন্টা খোলা রাখা সম্ভব নয় এবং অনেক কিছু কারণে আপনার physical store বন্ধ রাখতে লাগতেই পারে।তাই, অফলাইনের তোলনায় অনলাইনে চলানো দোকানে লাভের সুযোগ বেশি।

    ৪. অনলাইনে করা business আপনি বিশ্বের যেকোনো জায়গার থেকে নিজের চালাতে পারবেন। আপনার কেবল, laptop এবং internet connection এর প্রয়োজন হবে।

    কিন্তু,
    অনলাইনে করা business কোনো নির্দিষ্ট জায়গা ছাড়া সম্ভব না। আপনার এক জায়গায় থেকেই ব্যবসা চালাতে হবে।

    ৫. অফলাইন দোকান বা ব্যবসাতে আপনি কেবল একটি নির্দিষ্ট জায়গার লোকেদের বা গ্রাহকদের টার্গেট কোরে নির্দিষ্ট জায়গায় মাল বেচতে পারবেন।

    কিন্তু,
    Online করা business এ আপনি পুরো দেশ এবং বিদেশের লোকেদের বা গ্রাহকদের টার্গেট কোরে পুরো দেশ এবং বিদেশে ঘরে বসেই নিজের business চালাতে পারবেন।আপনার গ্রাহক ইন্টারনেটের মাধ্যমে পুরো দেশের থেকে আপনার কাছে চলে আসবে। 

    কিন্তু, প্রথম অবস্থায় নিজের business এর marketing করাটা কিন্তু জরুরি।এখন, আপনারা দুটো ব্যবসার মাধ্যমের পার্থক্য দেখেই হয়তো বুঝে গেছেন যে, অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবসা করাটা অধিক বেশি সহজ এবং লাভজনক।

    অনলাইনে ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন-

    অনলাইনে ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন:-আজকাল একটি অনলাইন ব্যবসা স্টার্ট (start) করাটা অনেক সহজ এবং সরল হয়ে গেছে। আজকাল, ইন্টারনেটের চাহিদা এবং ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়াতে অনলাইন মার্কেটে বিভিন্য কাজ করে profit আয় করার সুযোগ অনেক বেড়েগেছে।

    কিন্তু, আপনি যদি এই লাইনে নতুন এবং আপনার অনলাইন মার্কেটের কোনো knowledge নেই, তাহলে সবচে আগেই আপনার জেনেনিতে হবে, “অনলাইন ব্যবসা শুরু করার কিছু নিয়মের বেপারে” . মানে, কি কি মাধ্যম বা উপায় ব্যবহার করে আমরা একটি অনলাইন বিসনেস শুরু করতে পারবো।

    আলাদা আলাদা ব্যবসার (business) আলাদা আলাদা উপায় বা মাধ্যম রয়েছে। আপনি, যেই লাইনে business করতে চান, তার ওপরে নির্ভর কোরে আপনার ব্যবসার মাধ্যম বা প্রকার বেছেনিতে হবে।

    অনলাইন ব্যবসা শুরু করার ৬ উপায়-

    অনলাইন ব্যবসা শুরু করার ৬ উপায়;-নিচে অনলাইন ব্যবসা শুরু করার যেগুলি নিয়ম বা উপায়ের বেপারে আমি বলবো, সেগুলি ব্যবহার কোরে আপনারা অনেক সহজে যেকোনো প্রডাক্ট (product) বা সার্ভিস (service) অনেক সহজে অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে লোকেদের বা গ্রাহকদের বিক্রি করতে পারবেন।
    নিচে অনলাইন ব্যবসা শুরু করার যেগুলি নিয়ম বা উপায়ের বেপারে আমি বলবো, সেগুলি ব্যবহার কোরে আপনারা অনেক সহজে যেকোনো প্রডাক্ট (product) বা সার্ভিস (service) অনেক সহজে অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে লোকেদের বা গ্রাহকদের বিক্রি করতে পারবেন।
    তাছাড়া, এমন কিছু অনলাইন বিসনেস এর নিয়ম বলবো যেগুলি আপনারা বিনা পয়সায় বা কোনো টাকা না লাগিয়েই শুরু করতে পারবেন।

    ১. নিজের অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট বানিয়ে ব্যবসা-

    হে, আজ লোকাল যেকোনো জায়গার থেকে ইন্টারনেটে সব সময় বেশি মানুষ সক্রিয় থাকার জন্য, Physical store থেকে বেশি বিক্রি/গ্রাহক online store বা অনলাইন দোকান বা E-commerce website থেকে পাওয়া যায়।Offline shopping এর তুলনায় আজ, online shopping এর রুচি লোকেদের মধ্যে অনেক। 

    অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট দ্বারা দেশ বিদেশের যেকোনো জায়গার থেকে লোকেরা আপনার product এর ব্যাপারে জেনেনিতে পারবেন এবং ভালো লাগলে অর্ডার (order) করতে পারবেন।
    হে, আজ লোকাল যেকোনো জায়গার থেকে ইন্টারনেটে সব সময় বেশি মানুষ সক্রিয় থাকার জন্য, Physical store থেকে বেশি বিক্রি/গ্রাহক online store বা অনলাইন দোকান বা E-commerce website থেকে পাওয়া যায়।
    তাই, আপনিও অনেক সহজে নিজেই একটি online store বা E-commerce website বানিয়ে, নিজের দোকানের মাল বা দোকান না থাকলেও ঘরেই মাল (product) রেখে সেগুলি অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিক্রি করতে পারবেন।তাহলে, অনলাইন প্রোডাক্ট বেচার সব থেকে প্রচলিত এবং লাভজনক উপায় বা নিয়ম হলো “নিজের একটি E-commerce website“.

    উপরে ভিডিওটি লক্ষ করেন তাহলে বুঝতে পারবে-

    ২. ফেসবুক মার্কেটপ্লেস  দ্বারা ব্যবসা-

    ফেসবুক একাউন্ট থেকে অনলাইন টাকা আয় কিভাবে করবেন, সেবেপারে আমি আমার আগের আর্টিকেল আপনাদের বলেছি। এবং, সেই আর্টিকেলে প্রথমেই “ফেসবুক মার্কেটপ্লেস” থেকে অনলাইন আয়ের বিষয়ে বলেছি।
    ফেসবুক একাউন্ট থেকে অনলাইন টাকা আয় কিভাবে করবেন, সেবেপারে আমি আমার আগের আর্টিকেল আপনাদের বলেছি। এবং, সেই আর্টিকেলে প্রথমেই “ফেসবুক মার্কেটপ্লেস” থেকে অনলাইন আয়ের বিষয়ে বলেছি।
    Facebook আজ প্রায় প্রত্যেক দেশে বিখ্যাত এবং লক্ষ লক্ষ লোকেরা এখানে একাউন্ট বানিয়ে সক্রিয় (active) থাকেন।তাই, অনলাইন যদি আপনি কিছু বিক্রি করতে চান, তাহলে ফেসবুক আপনার প্রোডাক্ট (product) এর জন্য অসংখ এবং সঠিক গ্রাহকের জোগাড় করে দিতে পারে।

    ফেসবুকের এই মার্কেটপ্লেস (marketplace) সার্ভিস দ্বারা যেকোনো ফেসবুক একাউন্ট থাকা ব্যাক্তি তার নিজের পণ্য, সার্ভিস বা প্রোডাক্ট এখানে লিস্ট (list) কোরে সেই প্রোডাক্টের মার্কেটিং (marketing) করতে পারবেন।এতে, সেই প্রোডাক্ট লক্ষ লক্ষ ফেসবুক ব্যবহার করা লোকেরা দেখবেন এবং ভালো লাগলে তারা অনলাইন আপনার পণ্য অর্ডার (order) করবেন।

    তাছাড়া, ফেসবুকের লক্ষ লক্ষ সক্রিয় লোকেদের মধ্যে জেকেও আপনার product কিনতে চাইবে, সে আপনাকে contact কোরে আপনার থেকে কিনে নিতে পারবেন।আপনি, ফেসবুক বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে অনেক কম খরচেই জেকোনো জায়গা, এরিয়া বা দেশকে টার্গেট কোরে নিজের পণ্যের অনলাইন মার্কেটিং কোরে সহজে গ্রাহক পেয়েযেতে পারবেন। 

    এই ধরণের অনলাইন মার্কেটিং এর প্রক্রিয়াকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলা হয়।তাহলে, ফেসবুক মার্কেটপ্লেস অনলাইন পণ্য বা সেবা বিক্রি করার বা অনলাইন ব্যবসা শুরু করার এক সহজ নিয়ম বা উপায় হিসেবে আমরা বলতেই পারি।

    ফেসবুক মার্কেটপ্লেস ছাড়াও অনেক অনলাইন মার্কেটপ্লেস রয়েছে যেগুলিতে জেকেও রেজিস্টার কোরে নিজের প্রোডাক্ট অনলাইন বিক্রি করতে পারবেন। এতে, আপনার নিজের কোনো shopping website বানানোর কোনো প্রয়োজন হয়না।

    ৩. সোশ্যাল মিডিয়া (social media) ব্যবহার করে

    আজ, Facebook, twitter, Google plus বা Instagram এগুলির মতো অনেক social media website রয়েছে, যেগুলিতে অসংখক (unlimited) লোকেরা সক্রিয় (active) থাকেন।এক্ষেত্রে, আপনার যদি এরকম social media profile বা page রয়েছে এবং তাতে হাজার হাজার followers, friends বা subscribers রয়েছে, তাহলে অনেক সহজে আপনি এই social media website গুলি ব্যবহার কোরে অনলাইন নিজের পণ্য, বিসনেস বা সার্ভিস এর ব্যাপারে লোকেদের জানাতে পারবেন বা মার্কেটিং করতে পারবেন।

    সোশ্যাল মিডিয়া (social media) ব্যবহার করে
    এবং, এভাবেই সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইলের দ্বারা অনলাইন নিজের প্রোডাক্টের মার্কেটিং করে ইন্টারনেট থেকে গ্রাহক (consumer) পেয়ে যেতে পারবেন।

     ৪. Smartphone app তৈরি করে ব্যবসা-

    আজ, আপনি Google play store এ গিয়ে দেখলে বিভিন্য ধরণের সফল এপস দেখতে পারবেন যারা কিছু আলাদা এবং unique আইডিয়া নিয়ে একটি app বানিয়েছেন এবং সেই app এর মাধ্যমে লোকেদের অনলাইন নিজের পণ্য (product) বা সেবা (service) বিক্রি করছেন।উদাহরণ স্বরূপে,

    ভারত এবং বিভিন্য দেশে swiggy app, Food panda, Uber eats, এর মাধ্যমে লোকেরা ঘরে বসেই যেকোনো রেস্টুরেন্ট (restaurant) থেকে যেকোনো জায়গায় খাবার আনিয়ে নিতে পারেন।
    আজ, আপনি Google play store এ গিয়ে দেখলে বিভিন্য ধরণের সফল এপস দেখতে পারবেন যারা কিছু আলাদা এবং unique আইডিয়া নিয়ে একটি app বানিয়েছেন এবং সেই app এর মাধ্যমে লোকেদের অনলাইন নিজের পণ্য (product) বা সেবা (service) বিক্রি করছেন।

    আবার, Uber এবং OLA র মতো কিছু বিখ্যাত এপস রয়েছে যেগুলি ব্যবহার কোরে আমরা যেকোনো জায়গার থেকে cab, auto বা bike book করে ভ্রমণ করতে পারি অনেক কম খরচে।

    এভাবে, অনেক রকমের আলাদা আলাদা আইডিয়া এবং অনন্য অনলাইন বিসনেস আইডিয়া নিয়ে অনেকেই অনেক এপস বানিয়ে আজ সফল হয়ে নিজেদের কোটি কোটি টাকার কোম্পানি বানিয়ে নিয়েছেন।

    তাই, আপনার যদি কিছু unique business idea রয়েছে যেটা একটি app দ্বারা করা সম্ভব, তাহলে একটি smartphone app বানিয়েও আপনি সফল অনলাইন ব্যবসার মালিক হয়ে দাঁড়াতে পারবেন।

    ৫. Blogging এবং YouTube চ্যানেলের মাধ্যমে বিসনেস

    এখন আপনারা যদি এমন একটি ব্যবসা করতে চাচ্ছেন, জেতাতে এক টাকাও না ব্যবহার করেই করা যাবে, তাহলে আমি Blogging এবং YouTube এর ব্যবসার কথা বলবো।হে, ব্লগিং এবং ইউটিউবের চ্যানেলের মাধ্যমে বিসনেস আজ অনলাইনে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত, সহজ এবং লাভজনক ব্যবসা হিসেবে বলা হয়। এবং, একেবারেই ফ্রীতে আপনি এগুলি আরম্ভ করতে পারবেন।

    এখন আপনারা যদি এমন একটি ব্যবসা করতে চাচ্ছেন, জেতাতে এক টাকাও না ব্যবহার করেই করা যাবে, তাহলে আমি Blogging এবং YouTube এর ব্যবসার কথা বলবো।

    ব্লগিং এবং ইউটিউবের চ্যানেলের মাধ্যমে লোকেরা আজ ঘরে বসেই মাসে হাজার লক্ষ টাকা আয় করছেন। Google adsense এবং affiliate marketing এগুলির থেকে অনলাইন আয়ের মূল উপায়।
    আমার মতোই, অনেকেই রয়েছেন যারা এই ধরণের online profitable business করে দিনে কেবল ২ থেকে ৩ ঘন্টা কাজ করেই মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা part-time ইনকাম করছেন।

    এবং, হাজার হাজার লোকেরা এই দুই ধরণের ব্যবসা full-time কোরে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকাও সহজে কামিয়ে নিচ্ছেন। বিশ্বাস না হোলে গুগলে এই ব্যাপারে সার্চ কোরে দেখে নিন।কিন্তু, এই মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করার আগেই আপনার ভালো করে জ্ঞান নিয়ে বা এবেপারে সবটাই শিখে শুরু করতে হবে। অবশে, সেটা আপনি ইউটিউবে ভিডিও দেখে শিখে নিতে পারবেন।

    ৯ সেরা অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া 

    ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবসা করার কথা যদি আপনি ভাবছেন, তাহলে অনেক ধরণের অনন্য (unique) বিসনেস আইডিয়া (business idea) নিয়ে আপনি নিজের কাজ শুরু করতে পারবেন।যেই আইডিয়া নিয়ে, ওপরে বলা অনলাইন ব্যবসার নিয়ম বা উপায় গুলি ব্যবহার কোরে যেকোনো পণ্য (product) বা সেবা (service) ইন্টারনেটে সক্রিয় থাকা গ্রাহক বা লোকেদের বিক্রি করতে পারবেন, সেই আইডিয়া অনলাইনে করা আপনার সেরা বিসনেস আইডিয়া হিসেবে প্রমাণিত হবে।

    অনলাইন করার মতো ব্যবসা অনেক রয়েছে। কিন্তু, আপনার প্রথমে ভাবতে হবে যে, কোন জিনিস বা সেবা লোকেরা অনলাইন ইন্টারনেট থেকে সহজে কিনে নিতে চাইবেন। কোন জিনিসের চাহিদা অনলাইন মার্কেটে (online market) অনেক।এবং, শেষে কোন সেবা বা প্রোডাক্ট offline market এ পাওয়া 

    খুব কঠিন কিন্তু আপনি আপনার ব্যবসার দ্বারা লোকেদের সেই সামগ্রী বা সেবা আপনার online store বা অনলাইনে বিভিন্য ব্যবসার মাধ্যম গুলির দ্বারা সহজে প্রদান (provide) করতে পারবেন সেটা জানা জরুরি।এভাবে লোকেদের চাহিদা এবং online এবং offline market এর বিষয়ে সার্ভে (survey) বা রিসার্চ (research) কোরে, নিজের ব্যবসা শুরু করলে সফলতা পাওয়ার সুযোগ অনেক।

    ৯ টি সেরা অনলাইন ব্যবসার ধারণা (idea)

    ১. অনলাইন কাপড়ের ব্যবসা (online cloth store)

    অনলাইনে সবচে বেশি চাহিদা থাকা প্রোডাক্ট বা জিনিস হলো কাপড়। সে, ছেলেদের কাপড় হোক কি মেয়েদের কিংবা বাচ্ছাদের। আপনি যদি একটি online cloth store খুলেন তাহলে সেটা এক অনেক ভালো ব্যবসা হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে।

    আপনি লোকাল ম্যানুফ্যাকচারার (local manufacturer) বা wholesaler থেকে কাপড় কিনে তারপর নিজের লাভ যোগ কোরে সেগুলি অনলাইন বিভিন্য মাধ্যমে বিক্রি করতে পারবেন।

    অনলাইনে সবচে বেশি চাহিদা থাকা প্রোডাক্ট বা জিনিস হলো কাপড়। সে, ছেলেদের কাপড় হোক কি মেয়েদের কিংবা বাচ্ছাদের।
    সেই মাধ্যম, আপনার নিজের একটি শপিং ওয়েবসাইট হতে পারে, সোশ্যাল মিডিয়া দ্বারা হতে পারে বা বিভিন্য মার্কেটপ্লেস ব্যবহার করেও হতে পারে।অনলাইন কাপড়ের ব্যবসাতে চাহিদা এবং প্রফিট (profit) দুটোই অনেক বেশি। কিন্তু, সঠিক ভাবে ব্যবসাটা আরম্ভ করতে হবে।

    আপনি নিজেই একটি e-commerce website বানিয়ে নিতে পারবেন। বা, নিজের জন্য একটি অনলাইন website কাওকে দিয়েও তৈরি করিয়ে নিতে পারবেন।

    ২. মেয়েদের imitation বা artificilat jewellery ব্যবসা-

    আজ মেয়েরা, অরিজিনাল শোনার গহনা না পোরে আর্টিফিশিয়াল jewellary বা imitation jewellary পোরে অনেক বেশি ভালো পান।কারণ বিভিন্য জায়গায় যাওয়ার সময় বিভিন্য কাপড়ের সাথে সেই imitation jwellary সহজে ম্যাচ করে।

    আজ মেয়েরা, অরিজিনাল শোনার গহনা না পোরে আর্টিফিশিয়াল jewellary বা imitation jewellary পোরে অনেক বেশি ভালো পান।

    Imitation jwellary র চাহিদা অনলাইন মার্কেটে অনেক বেশি এবং এতে লাভ প্রায় অনেক। তাই, অনেক কম খরচে আপনি মাল কিনে তারপর সেগুলি অনলাইনে বিভিন্য মাধ্যমে মার্কেটিং এবং বিক্রি করতে পারবেন।

    ৩. নিজের Domain এবং Hosting ব্যবসা-

    যারা যারা আজ একটি অনলাইন ওয়েবসাইট (online website) তৈরি করতে চান তাদের প্রথমেই একটি domain এবং hosting প্ল্যান কিনতে হয়।তাই, আপনিও নিজের একটি ডোমেইন এবং হোস্টিং ব্যবসা শুরু করে কম দামে ডোমেইন বা হোস্টিং প্যাকেজ কিনে সেগুলি নিজের clients দেড় বিক্রি করতে হবে।

    যারা যারা আজ একটি অনলাইন ওয়েবসাইট (online website) তৈরি করতে চান তাদের প্রথমেই একটি domain এবং hosting প্ল্যান কিনতে হয়।

    সোজা ভাবে বললে, আপনার একটি domain & hosting reseller business স্টার্ট করতে হবে।অনলাইনে করা এই ব্যবসাতে লাভ অনেক বেশি। কিন্তু, প্রথমেই আপনার নিজের ব্র্যান্ড (brand) কে মার্কেটিং কোরে প্রচার করতে হবে এবং লোকেদের বিশ্বাস পেতে হবে।
    অবশই পড়ুন-


    ৪. Wholesaler বা manufacturer থেকে মাল কিনে বিক্রি-

    আপনি, নিজের পাশে থাকা wholesale দোকান বা manufacturer গুলির থেকে যেকোনো ধরণের পণ্য (product) বা জিনিস কিনে তারপর সেগুলি social media, Facebook marketplace বা বিভিন্য অনলাইন মার্কেটপ্লেস এর মাধ্যমে অধিক লাভে বিক্রি করতে পারবেন।

    আপনি, নিজের পাশে থাকা wholesale দোকান বা manufacturer গুলির থেকে যেকোনো ধরণের পণ্য (product) বা জিনিস কিনে তারপর সেগুলি social media, Facebook marketplace বা বিভিন্য অনলাইন মার্কেটপ্লেস এর মাধ্যমে অধিক লাভে বিক্রি করতে পারবেন।

    আজ, Bangladeshe অনেকেই এই মাধ্যম ব্যবহার কোরে অনলাইন অনেক জিনিস লাভে বিক্রি করছেন এবং ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

    ৫. অনলাইন রেস্তোঁরা ব্যবসা-

    আজ লোকেরা সবটাই অনলাইন অর্ডার কোরে ঘরে বোসে বসেই পেতে চান। এক্ষেত্রে, আপনার যদি ভালো ভালো খাবার বানানোর অভিজ্ঞতা আছে, তাহলে একটি অনলাইন খাবার দোকান বা online restaurant এর ব্যবসা আরম্ভ করতে পারবেন।একটি ওয়েবসাইট বা app এর মাধ্যমে জেকেও আপনার দোকানের খাবারের menu দেখে খাবার অর্ডার (order) করতে পারবেন।

    আজ লোকেরা সবটাই অনলাইন অর্ডার কোরে ঘরে বোসে বসেই পেতে চান। এক্ষেত্রে, আপনার যদি ভালো ভালো খাবার বানানোর অভিজ্ঞতা আছে, তাহলে একটি অনলাইন খাবার দোকান বা online restaurant এর ব্যবসা আরম্ভ করতে পারবেন।

    আমার এই অনলাইন restaurant এর বিসনেস করার আইডিয়াটা কিন্তু অনেক পছন্দ। এবং, এই আইডিয়াকে নিয়ে যদি আপনি কাজ কোরে সফল হন, তাহলে আপনার ব্র্যান্ড অনেক বিখ্যাত হবে এবং এর থেকে লাভের পরিমান আপনি কল্পনা করতে পারবেননা।

    কিন্তু, এই ব্যবসাতে, খাবারের কোয়ালিটি (taste), ডেলিভারি সময় এবং পরিমান সবটাই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এবং, এই কয়টা জিনিসের ওপরে আপনার ধ্যান দিয়ে কাজ করতে হবে।

    ৬. Affiliate marketing দ্বারা ব্যবসা-

    এফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন সেবেপারে আমি আমার আগের আর্টিকেলে আপনাদের বলেছি।Affiliate marketing আজ অনলাইন ইনকামের সব থেকে লাভজনক উপায় হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

    Affiliate দ্বারা ব্যবসা

    এই মাধ্যম ব্যবহার করে, আপনারা ইন্টারনেটে থাকা বিভিন্য online store বা website থেকে তাদের product বা সেবা লিংকের মাধ্যমে বিভিন্য মাধ্যমে (social media, blog, video) শেয়ার করতে হয়।

    এবং, যখন আপনার শেয়ার করা লিংকের মাধ্যমে গিয়ে কেও সেই product বা সেবাটি কিনেন, তখন আপনাকে একটি কমিশন (commission) দেয়া হয়।আয় করা commission এর এর পরিমান বিক্রি করা প্রোডাক্ট এর দামের ওপরে নির্ভর করে আপনাকে দেয়া হয়।

    ৭. ব্লগিং একটি বড় অনলাইন ব্যবসা-

    অনলাইন লাভজনক ব্যবসার কথা যখন আসে, আমি প্রথমেই ব্লগিং এর ব্যাপারে সবাইকে বলি। কারণ, বিনা পয়সায় একেবারে ফ্রীতে যদি আপনি অনলাইন একটি ব্যবসা করতে চান, তাহলে blogging সব থেকে সেরা এবং এর মাধ্যমে আয়ের সুযোগ অনেক বেশি।

    ব্লগিং অনলাইন ব্যবসা-

    আপনার একটি টপিক বা বিষয় নিয়ে ব্লগ বানাতে হবে এবং তারপর তাতে নিজের niche এর সাথে related আর্টিকেল লিখতে হবে।একবার সার্চ ইঞ্জিন থেকে ব্লগে ট্রাফিক বা ভিসিটর্স আশা শুরু হলেই আপনারা Google adsense দ্বারা ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।তাছাড়া, affiliate marketing এবং product promotion ব্লগ থেকে direct income করার সেরা মাধ্যম।

    Blogging business আজ লোকেরা অনেক professionally করছেন। কারণ, ভালো করে কোরলে এর থেকে বেশি ইনকাম কোনো অনলাইন ব্যবসা সহজে আপনাকে দিবেনা।
    অবশই পড়ুন-


    ৮. YouTube চ্যানেলের মাধ্যমে বিসনেস-

    যারা ক্যামেরার সামনে আসতে ভালো পান তাদের জন্য YouTube business সবথেকে বেশি লাভজনক ব্যবসা হিসেবে প্রমাণিত হবে।ইন্টারনেটে আজ লোকেরা যেকোনো কিছু জিনিসের সমাধান ভিডিওর মাধ্যমে পেতে চান।

    যারা ক্যামেরার সামনে আসতে ভালো পান তাদের জন্য YouTube business সবথেকে বেশি লাভজনক ব্যবসা হিসেবে প্রমাণিত হবে।ইন্টারনেটে আজ লোকেরা যেকোনো কিছু জিনিসের সমাধান ভিডিওর মাধ্যমে পেতে চান।

    এক্ষেত্রে, নিজের একটি ইউটিউবের চ্যানেল বানিয়ে তারপর তাতে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে টাকা আয় করাটা আজ একটি professional online business হিসেবে লোকেরা করছেন।তাই, আপনিও যদি বিনা খরচে এবং ফ্রীতেই একটি ব্যবসা করতে চান, তাহলে YouTube চ্যানেলে ভিডিও আপলোড কোরে টাকা আয় করাটা একটি লাভজনক অনলাইন ব্যবসার ধারণা হিসেবে প্রমাণিত হবে।

    ৯. অনলাইন লন্ড্রি পরিষেবা ব্যবসা-

    আজ সময় কারো কাছেই নেই। তাই, ঘরের কাপড় ধুয়ার জন্য ধোপা ঘরে বা laundry তে গিয়ে লোকেদের সেগুলি ধুয়াতে হয়।এই ক্ষেত্রে, আপনি যদি একটি mobile app বা website তৈরি করে লোকেদের online laundry service দিয়ে তাদের ঘর থেকেই কাপড় সংগ্রহ করে তারপর সেগুলি ধুয়াতে পারেন, তাহলে একটি আলাদা এবং অনন্য অনলাইন ব্যবসার ধারণা হিসেবে এই ব্যবসা প্রমাণিত হতে পারে।

    নলাইন লন্ড্রি পরিষেবা ব্যবসা-

    তাছাড়া, online dry cleaning এর কাজ আপনি এর সাথে চালিয়ে যেতে পারবেন।অনেক কম খরচে এই ব্যবসা অনেক সহজে সফল হয়ে দাঁড়ানোর সুযোগ অনেক বেশি।

    আমাদের শেষ কথা,

    তাহলে বন্ধুরা, অনলাইন ব্যবসা মানে কি ? কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন ? এবং ৯ টি সেরা এবং লাভজনক অনলাইন বিসনেসের আইডিয়া কোনগুলি, সবটাই এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের বুঝিয়ে বললাম।

    যেই মাধ্যম ব্যবহার কোরে, যেকোনো সেবা বা প্রোডাক্ট যেগুলি আপনারা অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে লোকেদের বিক্রি বা প্রদান করে ইনকাম করতে পারবেন সেই মাধ্যমকেই আপনি একটি অনলাইনে করা ব্যবসা হিসেবে নিতে পারবেন।

    এবং, এরকম অনেক ধারণা বা আইডিয়া রয়েছে যেগুলি এখনো কেও অনলাইন মার্কেটে নিয়ে আসেনি। তাই, আপনার প্রথমেই সেই বিসনেস আইডিয়া গুলির ব্যাপারে ভেবে অনলাইন কাজ শুরু করতে হবে।

    Guys, If You Need Font Copy And Paste For Instagram ,Twitter ,Fb Like Other Social Media So Click Here this Link.

    By commenting you acknowledge acceptance of Whatisloved.com-Terms and Conditions

    Post a Comment

    By commenting you acknowledge acceptance of Whatisloved.com-Terms and Conditions

    Post a Comment (0)

    Previous Post Next Post