কীভাবে স্মার্ট হবেন?স্মার্ট হওয়ার সহজ উপায়-মোটিভেশনাল

ধরুন আপনার একটা ব্যাংক একাউন্টে ১০ লক্ষ টাকা আছে। কিন্তু আপনি তার মধ্যে শুধুমাএ ২০ হাজার টাকা ব্যবহার করতে পারবেন। তখন আপনার কেমন লাগবে? অবশ্যই খুব হতাশ হবেন আপনি।

কিন্তু অবাক করা ব্যাপার হলেও সত্যিটা হলো এই যে আপনার বুদ্ধিমত্তা বা ব্রেণ পাওয়ারের ওপর আপনার Access করতে পারার পরিমাণও কিন্তু একই।সম্প্রতি কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে একজন সাধারণ মানুষ তার ব্রেণ পাওয়ার এর মাএ ২℅ ব্যবহার করেন।

সৌভাগ্যবশত আমাদের প্রত্যেকেরই এই unuse brain power access করার ক্ষমতা আছে। কিন্তু তার জন্য সবার আগে আমাদেরকে যা করতে হবে তা হলো আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বা perspective  টা শুধু পরিবর্তন করতে হবে।

কিন্তু দূর্ভাগ্যবশত আমরা আমাদের perspective সবসময় সংকীর্ণ করে রাখি।গৌতম বুদ্ধের সেই গল্পের মতো একবার অন্ধ ছয়জন  জ্ঞানী ব্যক্তি একটা হাতির বর্ণনা দেওয়ার চেষ্টা করলেন, প্রথম জন হাতির কান শুয়ে বললেন, হাতি দেখতে পুরো কম্বলের মতো।

দ্বিতীয় জন দাঁত ধরে বললেন, হাতি দেখতে লম্বা, চোকা ও ধারালো। এভাবে তৃতীয় জন হাতির পা ধরে বললেন, হাতি দেখতে গাছের গুড়ির মতো।

চতুর্থ জন হাতির পেট ছুঁয়ে বললেন, হাতি দেখতে বিশাল দেওয়ালের মতো।পঞ্চম জন হাতির লেজ ধরে বললেন, হাতি দেখতে দঁড়ির মতো।আর ষষ্ঠ জন মাথা ধরে বললেন, হাতি বিরাট কোনো পাথরের মতো দেখতে। 

তাদের প্রত্যেকে  আলাদা আলাদা অবস্থান থেকে হাতির বর্ণনা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। যদিও তাদের কেউও ভুল ছিলেন না তবুও তারা কিন্তু প্রত্যেকে প্রকৃতপক্ষে হাতির বর্ণনা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। 

কারণ তারা এক একজন কিছু বিচ্ছিন্ন অংশের  focus করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাই যদি আপনি চান এই একি জিনিস আপনার সাথে না ঘটুক তাহলে আপনার দৃষ্টিভঙ্গি প্রশস্ত করতে হবে। 

স্মার্ট হওয়ার সহজ ৪টি উপায়?

নিজেকে স্মার্ট করে তোলার উপায়,হ্যান্ডসাম হওয়ার উপায়,স্মার্ট হওয়ার সেরা উপায়,নিজেকে স্মার্ট দেখানোর উপায়,বুদ্ধিমান হওয়ার উপায়

বন্ধুরা কে না চাই স্মার্ট হতে বা স্মার্ট কাজ করে জীবনকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে। বর্তমান যুগে কম্পিটিশন এতো বেশি যে এখানে আপনাকে স্মার্টলি কাজ করতে হবে নইলে আপনি জিরো।চলুন জেনে নিয় “স্মার্ট হওয়ার সহজ উপায়”।    

১.উদার দর্শানুপাতঃ 

যখন জীবনে কোনো  সিদ্ধান্ত নেওয়ার দরকার পরে তখন আপনার কাছে দুটো অপশন থাকে। আপনি চাইলে শুধুমাএ এখনকার কথা ভেবে যাতে এখন আপনি আরাম আমোদে কাটাতে পারেন সেটার কথা ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন অথবা আপনি ভবিষ্যতের কথা ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। 

যেটা আপনাকে অনেক দূর ভবিষ্যত পর্যন্ত ভালো ফলাফল দিতে থাকবে।তো কোনটা বেশি ভালো দেখা গেছে অধিকাংশ সফল আর সুখী মানুষই long term চিন্তা ভাবনা করতে পছন্দ করেন। 

১৯৭০ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এডওয়্যাড ব্যান্ডফিল বিভিন্ন ধরনের  Socio economic background থাকা আসা কিছু মানুষের ওপর গবেষণা করেন। গবেষণায় দেখা যায় তারাই বেশি অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম যারা long term চিন্তা ভাবনায় অভ্যস্ত ছিলেন।

তারা কয়েক বছর এমনকি কয়েক দশক এগিয়ে চিন্তা করতেন। এরাই সমাজে smart কিছু মানুষ। তবুও একটা কথা সত্যি যে তাদের এই smartness টা কিন্তু আকাশচুম্বী কোনো কিছু থেকে আছেনি।

তাদের এই স্মার্টনেস এসেছে তাদের perspective বা দৃষ্টিভঙ্গি থেকে। কীভাবে তাদের এক একটা সিদ্ধান্ত তাদেরকে altimetry লক্ষ্য এ পৌঁছাতে সাহায্য করবে এই চিন্তা থেকে। 

এই স্মার্ট মানুষগুলোর সঙ্গে এক লাইনে আপনিও দাঁড়াতে চাইলে আপনাকে যা করতে হবে তা হলো আপনি আগামী ৫ বছরে নিজেকে কোথাই দেখতে চান সেটা ঠিক করা এবং সেখানে পৌঁছাতে আপনাকে কী করতে হবে সেটা স্থির করা।

অবশ্যই পড়ুন-

আর এগুলো করতে হলে আপনাকে আগে নিজের জীবনের বিভিন্ন দিক যেমন আপনার কর্মজীবন, সম্পর্ক, স্বাস্থ্য,সম্পদ এগুলোর বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা তৈরি করতে হবে।এবং তারপর সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে হবে। 

২.দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করাঃ

আমাদের ভাবনাগুলো অনেকটা কোক এর গ্লাসের বুদবুদ এর মতে। একটা ভাবনা আছে তো সাথে সাথে আবার উধাও হয়ে যায়।এরকম অনেক ভাবনাই প্রতি মুহূর্তে আছে যায়।

আর বেশি ভাগই আমরা logically thought গুলোর বদলে imotional thought গুলোকে আমাদের  জীবন নির্ধারণের জন্য ব্যবহার করি। 

যেমন ধরুন যখনি আপনার ফোনে নোটিফিকেশন বেজে ওঠে তখনি আপনার ব্রেণ আপনাকে বলে।হাতের কাজটা ফেলে দিয়ে তখনি আপনি মনোযোগ দেন নোটিফিকেশন চেক করতে। 

যদিও একটু পরে চেক করলে কিন্তু কিছুই ক্ষতি হয়ে যাবে না।আমরা একটু চেষ্টা করলেই আমাদের ব্রেণকে আরো effective উপায়ে কাজে লাগাতে পারি।আমরা সাধারণত দুটি পদ্ধতিতে চিন্তা করে থাকি। 

১.স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি।

যেটার উদাহরণ আমি এইমাত্র বললাম। 

২.হলো ধীর-স্থির ভাবে চিন্তা করা। 

যেটাতে আমরা সবগুলো অপশন মেপে নিয়ে তারপর সিদ্ধান্তে পৌছানোর চেষ্টা করি।কোনো long term important গোলের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্তে পৌছাতে গেলে আমাদেরকে এই ধীর- স্থির ভাবে চিন্তা করার মেধার সাহায্য নেওয়া উচিত।

একটা দারুণ উপায় হলো যেকোন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অত্যন্ত ৭২ ঘন্টা সময় নেওয়া। এতে করে আপনি সমস্ত রকমের অপশনের ভালো মন্দ চিন্তা করে দেখতে পারবেন।

৩.ধীরগতিতে ভালো সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিতঃ

এক মনে একটা কাজ করা আজকের দিনে আমাদের সকলের কাছে ভীষণ কঠিন একটা বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। গড়িমসি করে কাজ করার একটা transiency আমাদের সবার মধ্যেই আছে। কিন্তু সৌভাগ্যবশত এখানেও কিছু টেকনিক আছে যা আপনাকে এগোতে সাহায্য করবে। The law of 3 খুবই ভালো একটা উপায়।

অবশ্যই পড়ুন-

এই law যেটা বলে সেটা হলো সারাদিন শুধুমাএ তিনটি কাজ আপনার সেইদিনের productivity এর ৯০%রেজাল্টের জন্য দায়ী। 

অতএব এই তিনটি কাজকে চিহ্নিত করে এতে focus করাই আপনার চাবিকাঠি। এ তিনটি কাজ চিহ্নিত করতে হলে আপনার সবগুলো কাজের list তৈরি করে ফেলুন প্রথমে। আপনার লিস্ট অনেক বড় হবে কিন্তু সেটা  নিয়ে চিন্তা করবেন না।

পরে আপনাকে যা করতে হবে তা হলো আপনাকে নিজেকে তিনটি প্রশ্ন করতে হবে। এই লিস্টের সমস্ত কাজগুলোর মধ্যে সবথেকে important কাজ কোনটা যেটা আমাকে সর্বাধিক ফলাফল এনে দিতে পারে,একই ভাবে দ্বিতীয় ও তৃতীয় কাজটাকেও বের করে ফেলুন। 

৪.প্রত্যেকদিনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত চিহ্নিত করাঃ

আমাদের সবারই জীবনে সমস্যা রয়েছে। সফল মানুষেরা সবসময় ক্রেটিভ উপায়ে তাদের সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করতে পারেন।ক্রেটিভ thingkar যারা আছেন তারা সাফল্যের চাবিকাঠি সাথে নিয়ে ঘুরেন।

কারণ তারা confidently নিজেদের অবস্থাকে পরিবর্তন করতে চান।মেকানিকাল thingkar  রা  focus করেন সমস্যার ওপর আর ক্রেটিভ thingkar রা  focus করেন সমাধানের ওপর।

যখনই আপনি সমস্যায় পরবেন তখনি আপনাকে সমাধান খুঁজতে লেগে পরতে হবে। চেষ্টা শুরু করুন আর প্রয়োজন পরলে কারো সাথে discuss করুন।

অবশ্যই পড়ুন-

কীভাবে এর সমাধান খুঁজে বের করা যায়।একটা ভালো সমাধান পেলেই থেমে গেলে হবে না। আরো কয়েকটা খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন। তারপর আসল সিদ্ধান্তে পৌছানোর আগে সমস্ত সমাধান গুলোর একটা লিস্ট করে নিয়ে এক জায়গায় রেখে তারপর সিদ্ধান্ত নিন।

আমাদের শেষ কথা-

বন্ধুরা, আশা করি স্মার্ট হওয়ার উপায় সম্পর্কে আপনি বুঝতে পারছেন, পোস্টটি ভালো লাগল বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমাদের (অনলাইন কাজ) ওয়েবসাইট সর্বশেষ আপডেট পেতে আমাদের সাইটটি সাবস্ক্রাইব করতে পারেন নতুন নতুন সব পোস্ট পাওয়ার জন্য ভালো থাকবেন।

📝রাইটার- সুমাইয়া জান্নাত রিয়া 

📃Onlinekaj.com

By commenting you acknowledge acceptance of Whatisloved.com-Terms and Conditions

Post a Comment

By commenting you acknowledge acceptance of Whatisloved.com-Terms and Conditions

Post a Comment (0)

Previous Post Next Post